দাগযুক্ত টুনি | Zitting Cisticola | Cisticola juncidis

884
দাগযুক্ত টুনি | ছবি: ইন্টারনেট

আবাসিক পাখি। সুলভ দর্শন। প্রাকৃতিক আবাসস্থল নলখাগড়ার বন, জলাভূমির পাড়ের ঝোপঝাড়, কাশবন এবং শনক্ষেত। এ ছাড়া কৃষি জমির আশপাশের ছোট গাছগাছালি কিংবা ঝোপজঙ্গলে বিচরণ করে। পারতপক্ষে উঁচু গাছে বিচরণ করে না। মাঝারি গাছের ন্যাড়া ডাল বেশি পছন্দ। সারাদিন ঘাসবনে নেচে গেয়ে কাটায়। মায়াবী চেহারা। স্বভাবে শান্ত হলেও চঞ্চল অস্থিরমতির পাখি এরা। গানের গলা ভালো, ‘জিট..জিট..’ সুরে গান গায়। প্রজনন মৌসুমে পুরুষ পাখির হাঁকডাক বেড়ে যায়। এ সময় পুরুষ পাখির রঙেও খানিকটা পরিবর্তন আসে। দেখতে তখন আরো মায়াবী দেখায়। এরা অনেক সময় শরীরটাকে ফুলিয়ে গাছের ডালে বসে থাকে। তখন দূর থেকে গোলাকার কদমফুলের মতো দেখায়।

বৈশ্বিক বিস্তৃতি বাংলাদেশ, ভারত, দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশ, অস্ট্রেলিয়া, ইউরোপ ও আফ্রিকা পর্যন্ত। দেশে এদের অবস্থান মোটামুটি ভালো। তবে বিশ্বে এদের অবস্থান তত সন্তোষজনক নয়; হুমকিও নয়। ন্যূনতম বিপদগ্রস্ত।

পাখির বাংলা নাম: ‘দাগযুক্ত টুনি’, ইংরেজি নাম: ‘জিটিং কিস্টিকোলা (Zitting Cisticola), বৈজ্ঞানিক নাম: Cisticola juncidis। এরা ‘ভোমরা ছোটন’ নামেও পরিচিত।

প্রজাতির গড় দৈর্ঘ্য ১০-১২ সেন্টিমিটার। গড় ওজন পুরুষ পাখির ৭-১২ গ্রাম। স্ত্রী পাখি ৫-৮ গ্রাম। স্ত্রী-পুরুষ পাখির চেহারা ভিন্ন। সমস্ত শরীর হলুদাভ। মাথা বাদামি। ঘাড়, পিঠ ও ডানায় গাঢ় বাদামি দাগ। লম্বা লেজের ডগা সাদাটে। দেহতল সাদাটে-হলুদাভ। প্রজনন পালক ভিন্ন। চোখ বাদামি। ঠোঁট সরু, উপরের অংশ কালচে নিচের অংশ হলদেটে বর্ণের। পা গোলাপি ত্বক বর্ণের।

প্রধান খাবার: ছোট পোকামাকড়, ফড়িং, পিঁপড়া, মথ, শুককীট ইত্যাদি। প্রজনন মৌসুম মার্চ থেকে সেপ্টেম্বর। অঞ্চলভেদে প্রজনন মৌসুমের হেরফের রয়েছে। কাপ আকৃতির বাসা। বাসা বাঁধে নরম মাকড়সার জাল, চিকন লতা, শিকড়, তন্তু ও তুলা দিয়ে। ডিম পাড়ে ৩-৬টি। ডিম ফুটতে সময় লাগে ১৪-১৫ দিন।

লেখক: আলম শাইন।কথাসাহিত্যিক, কলামলেখক, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ।
সূত্র: দৈনিক মানবকণ্ঠ, 04/08/2017

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Time limit is exhausted. Please reload the CAPTCHA.