ছোট লেজি খাটোডানা | Lesser Shortwing | Brachypteryx leucophrys

314

ছবি: ইন্টারনেট।

মূলত পরিযায়ী পাখি। প্রাকৃতিক আবাসস্থল স্যাঁতসেঁতে লতাগুল্মের জঙ্গল এবং আর্দ্র চওড়া পাতার বনাঞ্চল। বেশিরভাগই একাকী বিচরণ করে। প্রজনন মৌসুমে জোড়ায় জোড়ায় দেখা যায়। আমুদে স্বভাবের। অস্থিরভাবে বিচরণ করে। লেজ ঘুরিয়ে গান গায়। কণ্ঠস্বর সুমধুর। কণ্ঠ বাঁশির সুরের মতো তীক্ষ্ণ শুনতে বেশ লাগে। থেমে থেমে শিস কেটে জোড়ের পাখিটাকে প্রেম নিবেদন করে। বৈশ্বিক বিস্তৃতি বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল, মিয়ানমার, চীন, থাইল্যান্ড, লাওস, ইন্দোনেশিয়া ও ভিয়েতনাম পর্যন্ত। প্রজাতিটি বিশ্বব্যাপী হুমকি না হলেও আইইউসিএন ন্যূনতম বিপদগ্রস্ত হিসেবে চিহ্নিত করেছে।

পাখির বাংলা নাম: ‘ছোট লেজি খাটোডানা’, ইংরেজি নাম: ‘লেসার শর্টউইং’ (Lesser Shortwing), বৈজ্ঞানিক নাম: Brachypteryx leucophrys | এরা ‘খুদে খাটোডানা’ নামেও পরিচিত।

প্রজাতির গড় দৈর্ঘ্য ১১-১৩ সেন্টিমিটার। স্ত্রী-পুরুষ পাখির রঙে তফাৎ রয়েছে। তবে আকার আকৃতিতে তেমন তফাৎ নেই। পুরুষ পাখির মাথা, ঘাড় ও পিঠ জলপাই রঙের সঙ্গে হালকা বাদামীর মিশ্রণ। ডানা ও লেজ গাঢ় বাদামীর হলেও জলপাই আভা বের হয়। দেহতল জলপাই সবজেটে। চোখ বাদামী। ঠোঁট ও পা জলপাই কালচে। স্ত্রী পাখির মাথা, ঘাড় ও পিঠ বাদামী। ডানা ও লেজ বাদামীর সঙ্গে কালচে। দেহতল বাদামীর সঙ্গে সাদা ছোপ। চোখের ওপর সাদা টান যা পুরুষ পাখির নেই। উভয়ের লেজ খাটো।

প্রধান খাবার: পোকামাকড়, কীটপতঙ্গ। প্রজনন মৌসুম এপ্রিল থেকে জুলাই। অঞ্চলভেদে প্রজনন মৌসুমের হেরফের রয়েছে। গম্বুজ আকৃতির বাসা বাঁধে সরু লতা, তন্তু দিয়ে। ডিম পাড়ে ২-৪টি। বাদবাকি তথ্যাদি জানা যায়নি।

লেখক: আলম শাইন। কথাসাহিত্যিক, কলামলেখক, বন্যপ্রাণীবিশারদ ও পরিবেশবিদ।
সূত্র: দৈনিক মানবকণ্ঠ, 08/12/2017