সাইবেরীয় চুনিকণ্ঠী | Siberian Ruby throat | Luscinia calliope

638

bp211115ছবি: গুগল|

চুনিকণ্ঠী চড়ুই আকৃতির পাখি। শীতে পরিযায়ী হয়ে আসে সাইবেরিয়া অঞ্চল থেকে। বিচরণক্ষেত্র কৃষি ভূমি, তৃণভূমি এবং গুল্ম-লতার ফাঁকফোকর। খাদ্য গ্রহণকালীন সময় একাকী কিংবা জোড়ায় বিচরণ করে। গাছের ডালে বসে বারবার ডানা প্রসারিত করে এবং ঠোঁট মুছতে থাকে ঘনঘন। বিশ্রাম নেওয়ার সময় শরীরের পালক ফুলিয়ে ফেলে। তখন অসুস্থ মনে হতে পারে। স্বভাবে লাজুক। ঝগড়া-ঝাঁটি পছন্দ নয়। সব সময় নিজেদের আড়ালে-অবডালে রাখতে পছন্দ করে। এ পাখি গায়কও। দারুণ সুরে গান গায়। মন ভালো থাকলে ঠোঁট ঊর্ধ্বমুখী করে, ‘চাক..চি-উই..চিলি’ সুরে গান গায়। গায় দ্রুতলয়ে। টানা সুরেও গান গাইতে পারে।

পুরুষ পাখির গলা উজ্জ্বল লাল। দূর দর্শনে মনে হয় বুঝি রুবি বা চুনিপাথর গলায় পরেছে। স্ত্রী পাখির গলায় আকর্ষণীয় লাল অংশটুকু নেই। নামকরণের ক্ষেত্রে গলার লাল অংশটুকুকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। প্রজাতির বৈশ্বিক বিস্তৃতি বাংলাদেশে ছাড়া ভারত, থাইল্যান্ড, চীন, জাপান ও ইন্দোনেশিয়া পর্যন্ত। এ ছাড়াও দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন অঞ্চলে দেখা যাওয়ার প্রমাণ মেলে। বিশ্বে এদের অবস্থান মোটামুটি সন্তোষজনক।

বাংলা নাম: ‘সাইবেরীয় চুনিকণ্ঠী’। ইংরেজি নাম: সাইবেরিয়ান রুবি-থ্রোট (Siberian Ruby-throat) । বৈজ্ঞানিক নাম: Luscinia calliope | এরা ‘লালগলা বা গুম্পিগোরা’ নামেও পরিচিত।

দৈর্ঘ্য কমবেশি ১৫ সেন্টিমিটার। প্রসারিত ডানা ২৫ সেন্টিমিটার। স্ত্রী-পুরুষ পাখির চেহারা ভিন্ন। পুরুষ পাখির গলার কেন্দ্রবিন্দু উজ্জ্বল লাল। চোখের উপর-নিচে স্পষ্ট চওড়া সাদাটান। অপরদিকে স্ত্রী পাখির গলা অস্পষ্ট সাদাটে। উভয়ের মাথা, পিঠ ও লেজ জলপাই-বাদামি। লেজ ঊর্ধ্বমুখী। লেজতল সাদাটে। বুক ধূসর। পেট জলপাই-বদামির ওপর অস্পষ্ট সাদাটে। ঠোঁট শিং কালো, গোড়ার দিকে ফ্যাকাসে। চোখ কালো। পা ত্বক বর্ণ।

এদের প্রধান খাবার পোকামাকড় ও কীটপতঙ্গ। প্রজনন মৌসুম মে থেকে আগস্ট। বাসা বাঁধে সাইবেরিয়ার তাইগ্যা অঞ্চলে। সরাসরি ভূমিতে ঘাস, তন্তু, চিকন ডালপালা ও চুল পেঁচিয়ে বাসা বানায়। ডিম পাড়ে ৪-৬টি। ডিম ফুটতে সময় লাগে ১৪ দিন। শাবক শাবলম্বী হতে সময় লাগে সপ্তাহ দুয়েক।

লেখক: আলম শাইন। কথাসাহিত্যিক, কলাম লেখক, বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ।
সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন, 21/11/2015